• শিরোনাম

    নিউজিল্যান্ড-বধের কৌশল জানা আছে তামিমদের কোচের

    | বৃহস্পতিবার, ২৫ মার্চ ২০২১

    নিউজিল্যান্ড-বধের কৌশল জানা আছে তামিমদের কোচের

    প্রথম ওয়ানডেতে তথৈবচ ব্যাটিং, দল অলআউট হলো মাত্র ১৩১-এ। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচে ব্যাটিংয়ে উন্নতির ছাপটা পড়েছে বেশ ভালোভাবেই। ২৭২ রানের লক্ষ্য ছুঁড়ে দেওয়া গিয়েছিল স্বাগতিকদের সামনে, ফিল্ডিংয়ে একটু নিখুঁত হলেই হয়তো ধরা দিত নিউজিল্যান্ডের মাটিতে ইতিহাসের প্রথম জয়। তবে ব্যাটিং দিয়েই শেষ ওয়ানডেতে অধরা জয়টা তুলে নেওয়া সম্ভব, বিশ্বাস তামিম ইকবালদের ব্যাটিং কোচ জন লুইসের। তবে তার আগে জুড়ে দিয়েছেন একটা শর্ত।

    কী সেই শর্ত? লুইসের কথা, ‘আমি মনে করি দেশের বাইরে বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদের জন্য নতুন বলে ও বাড়তি বাউন্সে মানসম্পন্ন সিম বোলিং সামলানোটা গুরুত্বপূর্ণ।’

    প্রথম দুই ওয়ানডেতে প্রতিপক্ষ বোলিং আক্রমণে ছিলেন না টিম সাউদি। শেষ ওয়ানডেতে দলে আনা হতে পারে তাকে। সেটা হলে বাংলাদেশকে নতুন বলে বাড়তি সতর্ক হতে হবে, অভিমত লুইসের। বাংলাদেশ ব্যাটিং কোচের কথা, ‘যদি আমরা শুরুতে ব্যাট করি, তাহলে নতুন বল কী করতে হবে তা সম্পর্কে সতর্ক থাকতে হবে।

    তাদের কাছে বোল্ট আছে, যদি সাউদিও যোগ হয় তাহলে তারা বেশ গুনসম্পন্ন পারফরমার। আমাদের এটা নিশ্চিত করতে হবে দুজনে যেন শুরুর দিকেই বাড়তি ক্ষতি করে বসতে না পারে। আর যদি বড় লক্ষ্য তাড়া করতে হয় আমাদের, তাহলে পাওয়ারপ্লের সুবিধা নিতে হবে আমাদের। কিছু ঝুঁকি নিতে হবে, কিছু শট খেলতে হবে।’

    ডানেডিনে ব্যাটিন ব্যর্থতার পর ক্রাইস্টচার্চে দারুণ লড়াই। জয়টা না মিললেও ব্যাটিং কোচের কাছে মনে হচ্ছে, দল আছে ঠিক পথেই। বললেন, ‘ব্যাটিংয়ে ক্রাইস্টচার্চে আমাদের দারুণ উন্নতি হয়েছে। ডানেডিনে এটা হয়নি কারণ, টস হেরেছিলাম আর বোলিংয়ের জন্য সময়টা ভালো ছিল।

    ক্রাইস্টচার্চে পিচটাও বেশ প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ছিল। অনুশীলনে যা করেছিল ব্যাটসম্যানরা, সব তারা সেদিন মাঠে করে দেখিয়েছিল। আমরা দারুণ কোনো ফলাফল পাইনি বটে, কিন্তু অন্তত এটা বলা যায়, আমরা ঠিক পথেই এগোচ্ছি।’

    তবে ক্রাইস্টচার্চে শেষ দিকের ওভারগুলোয় রান আসেনি তেমন। কোচ লুইস তেমন সমস্যা দেখছেন না এখানে। বললেন, ‘আমি মনে করি, প্রথম দশ ওভারে যে রানগুলো করতে পারব না আমরা, সেটা খেলার শেষদিকে পুষিয়ে দেওয়া সম্ভব।

    যদি প্রতিষ্ঠিত ব্যাটসম্যানরা ইনিংস আবারও গড়ার কাজে খুব বেশি মনোযোগ না দেয় তাহলেই এটা সম্ভব। যদি প্রথম দশ ওভারে ৩০-৪০ রান করি এক উইকেট হারিয়ে, তাহলে সেটা ঠিক আছে। ডানেডিনে আমরা দুই কিংবা তিন উইকেট হারিয়েছিলাম যা নিউজিল্যান্ডকে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার সুযোগ করে দিয়েছিল।’

    ইনিংসের শুরুতে তামিমের সতর্ক ব্যাটিং দ্বিতীয় ওয়ানডেতে বাংলাদেশকে লড়াকু স্কোরের পথ তৈরি করে দিয়েছিল, অভিমত লুইসের। বললেন, ‘আর সবার চেয়ে তামিমের অভিজ্ঞতাটা বেশি। সে যে ভূমিকা পালন করে, সেটা ভিত গড়ে দেয়। তামিম সৌম্য জুটি গড়ল, সেটায় ভর করেই মিঠুন পরে লড়াকু সংগ্রহ এনে দিয়েছিল।’

    দ্বিতীয় ওয়ানডেতে স্লগ ওভারে মিঠুনের ব্যাটিংয়ের ভূয়সী প্রশংসাও করেছেন বাংলাদেশের ব্যাটিং কোচ। বলেছেন, ‘মিঠুন ব্যতিক্রমী একটা ইনিংস খেলেছে। সে বলের কাছে যাওয়ার চেষ্টা করছিল। অফসাইডে খুব বেশি মনোযোগ দিচ্ছিল না সে, লেগসাইডকেই বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করছিল। ঢাকা ও চট্টগ্রামের চেয়ে বেশি বাউন্স আসে যেখানে, সেখানে এটা আপনি করতেই পারেন।’

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    মিডিয়ার উপর চটলেন সুজন

    ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
  • ফেসবুকে চিনাইরবার্তা.কম