• শিরোনাম

    সৌদি বিমানবন্দরে হামলা

    | মঙ্গলবার, ২৩ মার্চ ২০২১

    সৌদি বিমানবন্দরে হামলা

    সৌদির আরবের দক্ষিণাঞ্চলীয় আভা বিমানবন্দরে ড্রোন হামলা চালিয়েছে ইয়েমেনের হুথি বিদ্রোহী গোষ্ঠী। ইয়েমেনে যুদ্ধবিরতির লক্ষ্যে রিয়াদের নতুন শান্তি পরিকল্পনার প্রস্তাব দেওয়ার পরদিন মঙ্গলবার ইরান সমর্থিত এই বিদ্রোহী গোষ্ঠী সৌদি আরবে হামলার দাবি করেছে।

    তবে আভা বিমানবন্দরে হামলার ব্যাপারে তাৎক্ষণিকভাবে সৌদি কর্তৃপক্ষ অথবা ইয়েমেনে ছয় বছর ধরে লড়াইরত সৌদি নেতৃত্বাধীন সামরিক জোটের পক্ষ থেকে নিশ্চিত করা হয়নি। ইয়েমেনের হুথিরা প্রায়ই সৌদির দক্ষিণাঞ্চলের এই ব্মিানবন্দর লক্ষ্য করে ড্রোন এবং ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায়।

    সৌদি আরব এবং যুক্তরাষ্ট্র ইয়েমেনে শান্তি পরিকল্পনার প্রস্তাব মেনে নিতে হুথি বিদ্রোহীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। রিয়াদ বলছে, সানা বিমানবন্দর পুনরায় চালু এবং হুদাইদাহ বন্দর ব্যবহার করে জ্বালানি ও খাদ্য আমদানির অনুমতিও এই পরিকল্পনার অন্তর্ভুক্ত থাকবে। বর্তমানে সানা বিমানবন্দর এবং হুদাইদাহ বন্দর হুথি বিদ্রোহীদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

    এক টুইট বার্তায় হুথির সামরিক শাখার মুখপাত্র ইয়াহিয়া সারি বলেছেন, ‌‘সৌদি নেতৃত্বাধীন জোটের আগ্রাসন এবং অবরোধ যতদিন অব্যাহত থাকবে আমাদের অভিযানও ততদিন চলবে।’

    হুথির প্রধান মধ্যস্থতাকারী বার্তাসংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, আকাশ এবং সমুদ্রপথের অবরোধ পুরোপুরি প্রত্যাহারের যে দাবি ছিল সৌদি আরবের প্রস্তাব সেগুলোর আংশিক পূরণ করছে। কিন্তু সৌদি আরব, যুক্তরাষ্ট্র এবং মধ্যস্থতাকারী ওমানের সঙ্গে এই শান্তি চুক্তি নিয়ে আলোচনা অব্যাহত রাখবে হুথি।

    সৌদি আরবের তেল কারখানা-সহ গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন স্থাপনা লক্ষ্য করে সম্প্রতি হামলা বৃদ্ধি করেছে হুথি। এমনকি ইয়েমেনের গ্যাস-সমৃদ্ধ মাগরিব অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার জন্যও স্থল অভিযান পরিচালনা করছে দেশটির এই বিদ্রোহী গোষ্ঠী। এর জবাবে হুথির সামরিক ঘাঁটি লক্ষ্য করে বিমান হামলা পরিচালনা করছে সৌদি নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট।

    ২০১৫ সালের শুরুর দিকে হুথি বিদ্রোহীদের হামলার মুখে সৌদি-সমর্থিত ইয়েমেনের ক্ষমতাসীন প্রেসিডেন্ট আব্দ রাব্বু মনসুর আল হাদি ক্ষমতা ছেড়ে সৌদি আরবে পালিয়ে যান। ক্ষমতাচ্যুত এই প্রেসিডেন্টকে ফেরাতে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট ইয়েমেনে হুথিদের বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান শুরু করে।

    ইয়েমেনে এই সংঘাতকে মধ্যপ্রাচ্যে আধিপত্যের লড়াইয়ে সৌদি-ইরানের ছায়াযুদ্ধ হিসেবে দেখা হয়।

    মধ্যপ্রাচ্যের এই যুদ্ধে ইয়েমেনে ১ লাখ ৩০ হাজারের বেশি মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে এবং বাস্ত্যুচুত হয়েছেন লাখো মানুষ। চলমান এই সংঘাতে ইয়েমেন চরম দুর্ভিক্ষের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছেছে বলে সতর্ক করে দিয়েছে জাতিসংঘ।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
  • ফেসবুকে চিনাইরবার্তা.কম