• শিরোনাম

    টিকা রফতানিতে বাধা দিচ্ছে যুক্তরাজ্য, অভিযোগ ইইউর

    | বৃহস্পতিবার, ১৮ মার্চ ২০২১

    টিকা রফতানিতে বাধা দিচ্ছে যুক্তরাজ্য, অভিযোগ ইইউর

    যুক্তরাজ্য সরকার ইউরোপের বিভিন্ন দেশে টিকা রফতানিতে বাধা দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। স্থানীয় সময় বুধবার প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন ডার লেন বলেছেন, এ ব্যাপারে অবস্থান পরিবর্তন না করলে ‘ভুগতে হবে’ যুক্তরাজ্যকে।

    তবে তার অভিযোগ অস্বীকার করেছে যুক্তরাজ্য। দেশটির সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, টিকা উৎপাদনকারী কোম্পানিগুলোর পণ্য উৎপাদন, বণ্টন ও বিক্রয়ের ক্ষেত্রে ব্রিটেনের সরকার কোনো হস্তক্ষেপ করছে না।

    বুধবার উরসুলা ভন ডার লেন জানিয়েছেন, বিভিন্ন কোম্পানির করোনা টিকা বাজারে আসার পর থেকে এ পর্যন্ত ৩৩ টি দেশে মোট ৪ কোটি দশ লাখ টিকার ডোজ রফতানি করেছে ইইউ, তার মধ্যে যুক্তরাজ্যে গিয়েছে ১ কোটি ডোজ টিকা। ব্রিটেনের পরিসংখ্যান বলছে, যুক্তরাজ্যে গণটিকাদান কর্মসূচিতে এ পর্যন্ত যত টিকার ডোজ ব্যবহার হয়েছে, তার এক তৃতীয়াংশই এসেছে ইইউর তরফ থেকে।

    ইইউর রফতানি করা টিকার ডোজগুলো ফাইজার-বায়োএনটেক এবং অ্যাস্ট্রাজেনেকার। তবে এই কাজটি ইইউর সরাসরি তত্ত্বাবধানে হয়নি। এ বিষয়ক চুক্তির পর কোম্পানিগুলোর উদ্যোগেই বিভিন্ন দেশে পাঠানো হয়েছে টিকার ডোজ।

    গত ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহ থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলোতে একযোগে শুরু হয়েছে গণটিকাদান কর্মসূচি। কিন্তু টিকার ডোজে টান পড়ায় বর্তমানে ইউরোপের বিভিন্ন এলাকায় এই কর্মসূচি ধীরগতিতে চলছে।

    ঊদ্ভুত এ সমস্যার জন্য যুক্তরাজ্যকে দায়ী করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের অঙ্গসংগঠন ইউরোপীয় কাউন্সিল। গত সপ্তাহে ইউরোপীয় কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট চার্লস মাইকেল অভিযোগ করেন, টিকা রফতানি নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাজ্য, এ কারণেই চাহিদা অনুযায়ী টিকার ডোজ পাচ্ছে না ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

    মার্কিন সংবাদমাধ্যম পলিটিকোকে তিনি বলেছিলেন, ‘টিকা রফতানিতে বিধিনিষেধ আরোপের বিভিন্ন পন্থা রয়েছে। যুক্তরাজ্য সেগুলো অনুসরণ করছে। যদি গত কয়েকমাসের টিকা রফতানির তথ্য সামনে নিয়ে আসা হয়, তাহলেই ব্যাপারটি বোঝা যাবে।’

    তবে যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্য বিভাগ তখনই সেই অভিযোগ অস্বীকার করেছিল।

    বুধবার ইউরোপীয় কাউন্সিলের অভিযোগের প্রতিধ্বনি করেই ইইউ প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘যদি পরিস্থিতির উন্নতি না হয়, কোনো দেশ যদি ইউরোপে টিকা রফতানিতে কোনো প্রকার বিধিনিষেধ দেয়, সেক্ষেত্রে ভবিষ্যতে এজন্য দেশটিকে ভুগতে হবে।’

    এবারও ইইউ প্রেসিডেন্টের অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্য বিভাগ। বুধবার এক বিবৃতিতে ব্রিটেনের স্বাস্থ্য বিভাগ বলেছে, টিকা উৎপাদনকারী কোনো কোম্পানিকে রফতানি সংক্রান্ত কোনো প্রকার বিধিনিষেধ এ পর্যন্ত আরোপ করেনি যুক্তরাজ্য। টিকা বণ্টন ও রফতানি নিয়ন্ত্রণ করে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ, যুক্তরাজ্য সরকার নয়।

    কোম্পানির সঙ্গে চুক্তির সংক্রান্ত কারণে এই বিড়ম্বনা হয়েছে উল্লেখ করে যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানকক পৃথক এক বিবৃতিতে বলেন, ‘টিকা প্রস্তুতের পর প্রথম ১০ কোটি ডোজ টিকা যুক্তরাজ্য পাবে— এ রকম একটি চুক্তি অ্যাস্ট্রাজেনেকার সঙ্গে হয়েছিল আমাদের। হয়তো এ কারণেই অন্যান্য দেশ চাহিদা অনুযায়ী এই টিকার ডোজ পাচ্ছে না।’

    ‘ক্রয়-বিক্রয় সংক্রান্ত চুক্তির শর্তের কারণেই সম্ভবত ইইউর সদস্যদেশগুলোতে এই বিড়ম্বনা সৃষ্টি হয়েছে। তবে সত্য কথা হচ্ছে, টিকা রফতানিতে কোনো বিধিনিষেধ এ পর্যন্ত সরকার আরোপ করেনি।’

    আন্তর্জাতিক রাজনীতি বিশ্লেষকরা বলছেন, ব্রেক্সিটের পর থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে যুক্তরাজ্যের যে টানাপোড়েন চলছে, ইইউ প্রেসিডেন্টের সাম্প্রতিক মন্তব্যে তারই প্রতিফলন হয়েছে।

    চলতি মাসের গোড়ার দিকে অবশ্য খোদ যুক্তরাজ্যেই অভিযোগ উঠেছিল— ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টি, যা স্থানীয় ভাবে টোরি দল নামে পরিচিত— ইউরোপের অন্যান্য দেশে টিকা রফতানি করতে বাধা দিচ্ছে।

    এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে ০৮ মার্চ ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন দেশের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ হাউস অব কমন্সে বলেছিলেন, ‘আমি স্পষ্ট করে বলছি, করোনা টিকা রফতানিতে সরকার এখন পর্যন্ত কোনো প্রকার বিধিনিষেধ আরোপ করেনি এবং ভবিষ্যতে করবে— এমন সম্ভাবনাও নেই।’

    সূত্র: বিবিসি

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
  • ফেসবুকে চিনাইরবার্তা.কম