• শিরোনাম

    দ্বিতীয় দিনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় টিকা উৎসব, উৎফুল্ল সাধারণ মানুষ

    | মঙ্গলবার, ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১

    দ্বিতীয় দিনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় টিকা উৎসব,  উৎফুল্ল সাধারণ মানুষ

    করোনার গণটিকাদান কর্মসূচি উদ্বোধনের পর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দ্বিতীয় দিনেও ছিল উৎসবমুখর পরিবেশ। সোমবার (৮ ফেব্রুয়ারি) ছিল সাধারণ মানুষের দিন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালসহ বিভিন্ন টিকা কেন্দ্রে করোনা ভ্যাকসিন গ্রহণ করেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার সাধারণ মানুষ। হাসপাতাল সূত্র জানিয়েছে, দিন শেষে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট সদর হাসপাতালে ছয় শতাধিক মানুষ টিকা নিয়েছেন। আর সাধারণ মানুষের টিকা নেওয়ার উৎসাহ দেখে স্বস্তি প্রকাশ করেছেন চিকিৎসক এবং নার্সরা।

    ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে টিকা নেওয়ার পর নাজমুল হক নামে এক ব্যক্তি বলেন, টিকা দিতে পেরে আমি আনন্দিত। বাংলাদেশের মানুষ হয়ে এত তাড়াতাড়ি টিকা পেয়ে খুশি আমরা। টিকা নেওয়ার পর আমার কোনও সমস্যা হয়নি। যে কেউ এই টিকা নিতে পারেন।

    টিকা গ্রহণের পর শিবু দেবনাথ বলেন, টিকা নেওয়ার পর আমার কোনও পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়নি। অন্যান্য সময় আমরা যেভাবে টিকা নিয়ে থাকি ঠিক সেরকম মনে হয়েছে। আমি মানসিক ভাবেও নিরাপত্তা বোধ করছি।

    বিশ্বজিৎ রায় অপর ব্যক্তি বলেন, আমার টিকা নিতে গিয়ে কোনও সমস্যা হয়নি। প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ আমাদের এত দ্রুত সময়ের মধ্যে টিকার ব্যবস্থা করে দেওয়ার জন্য।

    শহরের অন্নদা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফরিদা নাজমীন বলেন, টিকা নেওয়ার আগে একটি ভীতি কাজ করেছিল। কিন্তু টিকা নেওয়ার সময় তা একেবারেই টের পাইনি। আজকে প্রথম টিকা নিয়েছি।

    আগামী ৪ সপ্তাহ পরে আবারও আসতে বলা হয়েছে দ্বিতীয় ডোজের জন্য। আমি সবাইকে বলবো অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করে দ্রুত টিকার আওতায় আসার জন্য। এতে করে নিজেকে সুরক্ষিত রাখা যাবে।

    দুপুরে হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স রেখা আক্তার বলেন, এখন পর্যন্ত কোনও প্রকার সমস্যা ছাড়াই আমরা টিকা দিয়ে যাচ্ছি। মানুষ আসছে টিকা নেওয়ার জন্যে। সকাল থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত সদর হাসপাতালে আমরা ১৪০ জনকে টিকা দিয়েছি। দিন শেষে পরিসংখ্যান আরও বাড়বে।

    ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক শওকত হোসেন বলেন, আজকে সকাল থেকে আমাদের টিকাদান কার্যক্রম চলমান আছে। যতক্ষণ লোকজন আসবে আমরা ততক্ষণ টিকাদান করবো।

    আজকে আমরা আশানুরূপ সাড়া পাচ্ছি। অনেক মানুষ নিজ থেকে আগ্রহী হয়ে টিকা নিতে আসছেন। আশাকরি আরও মানুষ আসবে। আমরা তাদেরকে নিয়ম অনুযায়ী সেবা প্রদান করবো।

    ব্রাহ্মণবাড়িয়া সিভিল সার্জন ডা. মো. একরাম উল্লাহ্ বলেন, জেলার ৯টি উপজেলায় মোট ৬ শতাধিক মানুষ আজ দ্বিতীয় দিনে টিকা নিয়েছে। টিকা নেওয়ার ব্যাপারে মানুষের মাঝে উৎসাহ উদ্দীপনা বেড়েছে। পর্যায়ক্রমে সকল নাগরিক টিকার আওতায় আসবে।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

  • ফেসবুকে চিনাইরবার্তা.কম