• শিরোনাম

    নিখোঁজ ইন্দোনেশীয় বিমানের ধ্বংসাবশেষের খোঁজে ফের অভিযান

    | সোমবার, ১১ জানুয়ারি ২০২১

    নিখোঁজ ইন্দোনেশীয় বিমানের ধ্বংসাবশেষের খোঁজে ফের অভিযান

    ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তা থেকে ৬২ জন যাত্রী নিয়ে বিধ্বস্ত বিমানটির আরও ধ্বংসাবশেষের খোঁজে সোমবার সকালে ফের অভিযান শুরু করেছে দেশটির নৌবাহিনী। এরইমধ্যে ডাইভারদের অনুসন্ধানের একটি ফুটেজ প্রকাশ করেছে তারা।

    শনিবার বর্নিও দ্বীপে যাওয়ার পথে রাডার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে বিমানটি। এরইমধ্যে প্লেনটির ব্ল্যাক বক্সের সন্ধান মিলেছে। রবিবার ব্ল্যাক বক্স দুইটির অবস্থানস্থল শনাক্ত করার কথা জানিয়েছে এছাড়া এদিন কিছু দেহাবশেষ ও বিমানের ধ্বংসাবশেষও উদ্ধার হয়।

    সোমবার সকালে ফের উদ্ধার অভিযান শুরু হয়েছে। অনুসন্ধান ও উদ্ধার অভিযান বিষয়ক সংস্থার ক্র্যাশ অপারেশন্সের প্রধান রাসম্যান এমএস সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, বিরামহীনভাবে উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করা হবে। যত দ্রুত আমরা ভিকটিমদের খুঁজে বের করতে পারি ততই মঙ্গল।

    বার্তা সংস্থা এএফপি-র বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, কয়েক ডজন নৌকা ও হেলিকপ্টার নিয়ে প্রায় দুই হাজার ৬০০ মানুষ অনুসন্ধান তৎপরতায় যুক্ত হয়েছে। শুধু বিমানটির অবশিষ্ট ধ্বংসাবশেষ খুঁজে বের করার কাজে নিয়োজিত রয়েছে ৫০টিরও বেশি জাহাজ এবং ১৩টি এয়ারক্রাফট।

    রবিবার সকালেও ডুবুরিরা সমুদ্রের ৭৫ ফুট নিচ থেকে কিছু ধ্বংসাবশেষও উদ্ধার করেছেন। খুঁজে পেয়েছেন মানুষের শরীরে অংশবিশেষ আর কাপড়। সোমবার বিবিসি জানিয়েছে, নতুন করে আর কারও দেহাবশেষ পাওয়ার কোনও আশা নেই।

    ইন্দোনেশিয়ার ন্যাশনাল ট্রান্সপোর্টেশন সেফটি কমিটির একজন তদন্তকারী রয়টার্সকে জানিয়েছেন, তার ধারণা পানিতে আছড়ে পড়েই ‌টুকরো হয়ে যায় বিমানটি।

    নুকায়হো উতোমো নামের এই তদন্তকারী কর্মকর্তা বলেন, ‘বিমানটির ধ্বংসাবশেষ মূলত কাছাকাছি জায়গা থেকেই পাওয়া গেছে। ফলে হতে পারে যে, পানিতে আছড়ে পড়ার পর সেটি দুই টুকরো হয়ে গেছে। কেননা মাঝ আকাশে বিস্ফোরিত হলে ধ্বংসাবশেষগুলো আরও অনেক বেশি ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকতো।’

    ৯ জানুয়ারি ভারী বৃষ্টির মধে উড্ডয়নের চার মিনিটের মাথায় ২৬ বছরের পুরনো বিমানটি হারিয়ে যায়। রবিবার বিমানটির ব্ল্যাক বক্স রেকর্ডারের সন্ধান পাওয়ার কথা জানান ইন্দোনেশীয় জাতীয় পরিবহন নিরাপত্তা কমিটির প্রধান সোয়েরজান্তো জাহজোনো। সামরিক প্রধান হাদি জাহজান্তোও এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, দ্রুতই এগুলো পুনরুদ্ধার করা হবে৷’ তবে কবে নাগাদ তা উদ্ধার হতে পারে তার নির্দিষ্ট কোনও সময়সীমা উল্লেখ করেননি তিনি৷

    কর্তৃপক্ষ বলছে, উড়োজাহাজের আরোহীদের মধ্যে ১০ জন শিশু ছিল। তারা সবাই ইন্দোনেশীয়। পনতিয়ানা বিমানবন্দরে উড়োজাহাজের আরোহীদের উদ্বিগ্ন স্বজনেরা শনিবার রাত থেকে অপেক্ষায় রয়েছেন। সূত্র: বিবিসি।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

  • ফেসবুকে চিনাইরবার্তা.কম