• শিরোনাম

    পল্লী বিদ্যুতের বিল পরিশোধ না করলে সংযোগ বিচ্ছিন্ন,মাইকিং করে হুমকি।

    চিনাইরবার্তা.কম মোঃ আব্দুল হান্নান,নাসিরনগরঃ | মঙ্গলবার, ১৯ মে ২০২০

    পল্লী বিদ্যুতের বিল পরিশোধ না করলে সংযোগ বিচ্ছিন্ন,মাইকিং করে হুমকি।

    যেখানে বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসে কাপছে সাড়া বিশ্ব।বন্ধ ব্যবসা বাণিজ্য।কর্মহীন হয়ে পড়েছে মানুষ। ঝুঁকি এড়াতে দেষে ঘোষনা করা হয়েছে সাধারণ ছুটি।এমন অবস্থার মাঝে বিদ্যুৎ বিল পরিশোধের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে বিভিন্ন গ্রামে ও ইউনিয়নে গিয়ে মাইকিং করে পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির নাসিরনগর জোনাল অফিসের পক্ষ থেকে বিল পরিশোধ না করলে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হবে বলেও হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। এ নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে বিরাজ করছে ক্ষোভ।

    কুন্ডা ইউনিয়নের গুচ্ছ গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য মোঃ আব্দুর রশিদ সহ স্থানীয়রা জানায়, এক সপ্তাহ ধরে নাসিরনগর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি নাসিরনগর জোনাল অফিসের পক্ষ থেকে বিল পরিশোধের জন্য অটোরিকশা করে মাইকিং করানো হচ্ছে। বলা হচ্ছে, বিল পরিশোধ না করলে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হবে। এরপর থেকেই চাপড়তলা ও গুনিয়াউক ইউনিয়নের শত শত গ্রাহক বিভিন্ন পয়েন্টে বিদ্যুৎ অফিসের লোকদের কাছে বিল পরিশোধ করছেন। সেখানে মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব।

    বিল সংগ্রহকারীদের সঙ্গে কথা হলে তারা বলেন, এটা অফিসের আদেশ। আমাদের কিছুই কারার নেই।
    চাপড়তলা ইউনিয়নের এক বাসিন্দা বলেন, সরকার বলছে করোনা সংক্রমণ এড়াতে ফেরুয়ারি, মার্চ এবং এপ্রিল এই তিনমাসে বিল পরিশোধের ক্ষেত্রে কোনও বিলম্ব মাশুল বা সাবচার্জ দিতে হবে না। অথচ স্থানীয় পল্লীবিদ্যুৎ অফিস মাইকিং করে জনসমাগম ঘটিয়ে বিল পরিশোধ করতে বাধ্য করছে। আরো বলা হচ্ছে, যে বিল পরিশোধ না করলে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হবে। এমনই অভিযোগ করেছেন উপজেলা বুড়িশ্বর ইউনিয়নের বেশ কয়েকজন গ্রাহক।

    এ বিষয়ে জানতে চাইলে ডিজিএম আবুল বাসার সামসুদ্দিন আহমেদ বলেন,আমরা কাউকে কোন হুমকি বা চাপ প্রয়োগ করিনি। যারা বিল পরিশোধে আগ্রহী তাদের কাছ থেকে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে বিল গ্রহন করা হচ্ছে। তিনি আরো বলেন আপনার জানেন সরকার পল্লী বিদ্যুতকে কোন ভর্তুকি দেয় না।পল্লীবিদ্যুৎ পিডিবির কাছ থেকে বিদ্যুৎ ক্রয় করে পাবলিককে সার্ভিস দেয়। আমরা পিডিবির কাছে কোন বকেয়া রাখতে পারিনা। তিনি আরো বলেন তিন মাসের জন্য শুধু আবাসিক বিলের বেলা শিতিল করা হয়েছে কিন্তু বিল একেবারে মওকুপ করা হয়নি বা মওকুপের কোন সুযোগও নেই। কন্তু মানুষ ভুল বুঝে মনে করছে সরকার বিল মওকুপ করে দিয়েছে।এ ভুল ভাঙ্গানোর জন্যই আমাদের এ প্রচেষ্টা।

    এ বিষযে নাসিরনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমা আশরাফী বলেন, খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

     

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

  • ফেসবুকে চিনাইরবার্তা.কম